Hotline: 01883 157887

ওয়েস্টকোট/ প্রিন্স কোট

পুরুষের পোশাকে এথনিক স্যুট এখন ট্রেন্ডি। প্রিয় পাজামা পাঞ্জাবির সঙ্গে কোট অথবা কোটির চাহিদা স্থান করে নিয়েছে ফ্যাশনে। রোজকার দিনে এখন ট্রাউজার আর ব্লেজারে করপোরেট লুকের রীতি আমাদের দেশে বহু বছরের। বেশে বদল নিয়ে আসার সুযোগ তৈরি হয় নিমন্ত্রণে। পোশাকে ঐতিহ্য তুলে আনার প্রয়াস নজর কাড়ছে। উপমহাদেশের সংস্কৃতি প্রকাশিত হচ্ছে জোরালোভাবে। ডিজাইনাররা নিজেদের দেশীয় ফেব্রিকে পোশাক তৈরি করছেন। প্যাটার্নে রাখছেন ভিন্নতা আর চিরায়তের ফিউশন। অলঙ্করণে স্থান পাচ্ছে ভিন্ন ভিন্ন ঘরানার মোটিফ।

বছরের এ সময়টাতে উৎসবের ধুম পড়ে যায়। শীত-সন্ধ্যায় নানা রকম আয়োজনে প্রিয়জনের সঙ্গে মেতে ওঠার এই তো সময়। ফ্যাশন সচেতনতা বেড়েছে পুরুষদের মধ্যে। বিশ্বজুড়েই ফ্যাশনে তার প্রভাব দেখতে পাচ্ছি আমরা। একসময় পোশাকে নতুনত্ব অথবা সবার মাঝে বিশেষভাবে উপস্থিত হওয়ার আগ্রহের আধিক্য আমরা দেখতে পেতাম নারীদের মাঝে। পুরুষের ফ্যাশন সচেতনতা যেন লুকিয়ে ছিল আড়ালে। এসেছে বদল। পোশাকে ঐতিহ্য তুলে আনার প্রয়াস নজর কাড়ছে। একসময় দাওয়াত মানেই পুরুষের পরনে পাশ্চাত্যের কেতাদুরস্ত পোশাক দেখা যেত। পরিবর্তনের পরশে তাতে এসেছে ভিন্নতা। উপমহাদেশের সংস্কৃতি প্রকাশিত হচ্ছে জোরালোভাবে। ডিজাইনাররা চেষ্টা করছেন নিজেদের দেশীয় ফেব্রিকে পোশাক তৈরি করতে। প্যাটার্নে রাখছেন ভিন্নতা আর চিরায়তের ফিউশন। অলঙ্করণে স্থান পাচ্ছে ভিন্ন ভিন্ন ঘরানার মোটিফ। মোটিফ ব্যবহারে বর্তমানে সীমাবদ্ধতা তেমনভাবে নেই বললেই চলে। মোটিফ ব্যবহারের বৈচিত্র্য পোশাক অলঙ্করণে তৈরি করেছে ভিন্ন মাত্রা।

পুরুষের পোশাকে এথনিক স্যুট এখন ট্রেন্ডি। প্রিয় পায়জামা-পাঞ্জাবির সঙ্গে কোট অথবা কটির চাহিদা স্থান করে নিয়েছে ফ্যাশনে। রোজকার দিনে এখন ট্রাউজার আর ব্লেজারে করপোরেট লুকের রীতি আমাদের দেশে বহু বছরের। বেশে বদল নিয়ে আসার সুযোগ তৈরি হয় নিমন্ত্রণে।

পাঞ্জাবির কদর সব সময়েই ছিল। পাতলা সাদা আদ্দিতে তৈরি করে নেওয়া হতো ফরমায়েশ দিয়ে। অলঙ্করণে থাকত নিখুঁত সূচিকর্ম। এখন পাঞ্জাবি পাওয়া যায় নানা রকম রঙ-ঢঙে। ফেব্রিকের সম্ভার বেড়েছে। যোগ হয়েছে বিভিন্ন ফেব্রিক। এর মাঝে পলি ভিসকস অন্যতম। হিম আবহাওয়ায় এ ফেব্রিক একই সঙ্গে স্বস্তি এবং আভিজাত্য এনে দেয়।

কটির ব্যবহারের ক্ষেত্রে কিছু বিষয় রাখতে পারেন বিবেচনায়। পাঞ্জাবি যদি এক রঙা বেছে নেন, তবে তার সঙ্গে ভিন্ন রঙের কটি মানাবে। এক রঙা কটি এড়িয়ে যাওয়াই ভালো। অন্তত শেডের ভিন্নতা রাখুন। শুধু রঙের এদিক-ওদিক নয়। কটির বৈচিত্র্য তৈরি হতে পারে নানা রকম নকশা করা ফেব্রিকে। প্রিন্টের ফেব্রিক তৈরি করবে আলাদা মাত্রা। ত্রিমাত্রিক, জিগজ্যাগ, জ্যামিতিক নকশা এ ক্ষেত্রে থাকতে পারে পছন্দের তালিকায়। হাল আমলের ফুলের নকশা বেছে নিয়ে তৈরি করতে পারেন অনন্য। রঙের ক্ষেত্রে এখন আর লিঙ্গান্তরের বাধা নেই। তাই বেছে নিতে পারেন যে কোনো রঙ। উজ্জ্বল অথবা হালকা যে কোনো রঙই থাকতে পারে পোশাকে। দিনের উৎসবে হালকা রঙের পোশাক বেছে নিন, রাতের আয়োজনে পরুন গাঢ় ও উজ্জ্বল রঙ। পোশাকে আভিজাত্যের ছোঁয়া নিয়ে আসে এথনিক স্যুট। এর সঙ্গে যুতসই জুতা বেছে নিন। হাতে থাকতে পারে পছন্দের ঘড়ি। মেটাল রঙের ঘড়ি বেশ মানিয়ে যাবে এমন পোশাকের সঙ্গে। ঘর থেকে বের হওয়ার আগে প্রিয় সুগন্ধি ছড়িয়ে দিন।